করোনা সংক্রমন বৃদ্ধি পাওয়ায় সিলেটে সামাজিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় জনসমাগম নিষিদ্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক:: ফের করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় বিদ্যমান পরিস্থিতি বিবেচনায় করোনা রোধে সিলেটের জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নতুন করে ১১ দফা নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। এতে সামাজিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয়সহ সকল ক্ষেত্রে সব ধরনের জনসমাগম নিষিদ্ধ করা হয়েছে। সিলেটের জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এম কাজী এমদাদুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এসব সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়েছে। আগামী দুই সপ্তাহ পর্যন্ত এসব নির্দেশনা কার্যকর থাকবে। নির্দেশনাগুলো হলো:

ক) সামাজিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয়সহ সকল ধরণের জনসমাগম নিষিদ্ধ।

খ) মসজিদ-মন্দিরসহ সকল ধর্মীয় উপাসনালয়ে যথাথথ স্বাস্থ্যবিধি পরিপালন করতে হবে।

গ) পর্যটন-বিনোদনকেন্দ্র, সিনেমা হল, থিয়েটার হলে অন্য জেলার পর্যটক/দর্শনার্থীদের আগমন নিষিদ্ধ।

ঘ) সিএনজি অটোরিকশা-বাসসহ সকল প্রকার গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। গণপরিষহণে ধারণ ক্ষমতার ৫০ ভাগের অধিক যাত্রী পরিবহন করা যাবে না।

ঙ) হাট-বাজার, মার্কেট, শপিংমলসহ বিভিন্ন স্থানে কেনা-বেচা রাত ৯টা পর্যন্ত চালু থাকবে। এসব স্থানে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়কেই যথাযথভাবে সকল স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে এবং আবশ্যিকভাবে মাস্ক পরিধান করতে হবে।

চ) প্রাক-প্রাথমিক, প্রাথমিক, মাদ্রাসা, মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান, বিশ্ববিদ্যালয় ও কোটিং সেন্টারসহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

ছ) প্রয়োজন ব্যতীত ঘরের বাইরে অবস্থান করা যাবে না। অপ্রয়োজনীয় ঘোরাফেরা বা আড্ডা নিষিদ্ধ। এছাড়া জরুরি প্রয়োজন ছাড়া রাত ১০টার পর বাইরে বের হওয়া যাবে না।

জ) যে কোনো প্রয়োজনে ঘরের বাইরে গেলে আবশ্যিককভাবে মাস্ক পরিধান করতে হবে। সকল ধরনের স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে পরিপালন করতে হবে।

ঝ) সভা, সেমিনার, প্রশিক্ষণ, কর্মশালা যথাসম্ভব অনলাইনে আয়োজন করতে হবে।

ঞ) হাটেল-রেস্তোরাসমুহে ধারণ ক্ষমতার অর্ধেকের বেশি ক্রেতা প্রবেশ করানো যাবে না।

ট) কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ এবং অবস্থানকালীন সময়ে সর্বদা আবশ্যিকভাবে মাস্ক পরিধানসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যাবিধি মেনে চলতে হবে।

Related posts

Leave a Comment