মাকে সুস্থ করতে দুই শিশুর ফুটপাতে আপ্রাণ চেষ্টা (ভিডিও)

যাদের স্কুলে যাবার সময়। অন্য শিশুদের মতো ভালো পরিবেশে বাবা-মায়ের আদরে বড় হওয়ার কথা। সেই শিশুরা তাদের মায়ের সঙ্গে দিন-রাত কাটাচ্ছে ফুটপাত বা কোনও পার্কে। সমাজের অন্য শিশুদের মতো তাদের বেড়ে ওঠা নয়। সারাদিন শ্রম দিয়ে মা যেটুকু খাবার নিয়ে আসেন তা দিয়েই তারা তৃপ্ত হয়।
সেই মা আজ অসুস্থ। কোনও হাসপাতালে যাবার ক্ষমতা হয়তো তার নেই। তাই ফুটপাতেই কাতরাচ্ছেন অসুস্থ হয়ে। মাকে বাঁচাতে শিশুরা আপ্রাণ চেষ্টা করছে।
এরকম একটি ভিডিও শেয়ার হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। যেটি ভাইরাল হয়েছে।
যেখানে সমাজের কিছু লোক আছেন যারা মায়ের খুঁজই নেন না। সেখানে এ অবুঝ শিশু তাদের মাকে সুস্থ করতে আপ্রাণ চেষ্টা করছে।
তাদের হাতে নেই ওষুধ, হাতে সম্বল বলতে বোতলের ছিপি, আর হালিমের খোলা বাটি। তারা তাতে পানি পুরে মাকে বাঁচাতে সর্বোচ্চ চেষ্টা চালাচ্ছে।
সামাজিক মাধ্যমে আব্দুল্লাহ আল জুবায়ের নাউফি নামক এক শিক্ষার্থী এ পোস্টটি দিয়েছেন।
পোস্ট দিয়ে তিনি লিখেছেন, ভিডিও টা আপ দিতাম না, কারণ এমন ঘটনার সাক্ষী আমি মাঝে মাঝিই হই! কিন্তু আজকের ঘটনাতে একটা শিক্ষণীয় বিষয় ছিলো তাই দিতে বাধ্য হলাম। 3D max এর ক্লাস করে ফিরছিলাম, উদ্দেশ্য ধানমন্ডি ব্যাচেলর পয়েন্ট, ভাবলাম হেটেই যাই রাস্তা দিয়ে হাটছিলাম রাস্তার পাশে চোখ যেতিই দৃষ্টি আটকে গেলো, এই মহিলাকে আমি এর আগেও লেকের আশেপাশে দেখেছি হয়তো ফুল বেচে! আজ দেখলাম শুয়ে আছে। ঘটনা সেটা না, ঘটনা হচ্ছে এই বাচ্চার কাজ দেখে মাথায় পানি দিতে দেখে জিজ্ঞেস করলাম কি হয়ছে বললো জ্বর আসছে মায়ের! আমি অবাক হলাম এই টুকু একটা বাচ্চা কিভাবে বুদ্ধি করে মায়ের মাথায় জল দিচ্ছে, অথচ আমাদের সমাজে অনেক ছেলে-মেয়ে আছে, সুস্থ মায়েরই সেবা করতে চায় না!জিজ্ঞাস করলাম জ্বর কবে আসছে বললো কাল রাতে, ট্যাবলেট খাইনি? টাকা নেই বললাম চলো মেডিসিন কিনে দেই ওরে নিয়ে একটু যেতেই দেখলাম আশেপাশে কোনও দোকান নেই মেডিসিনের, বললাম তোমরা থাকো, আমি দিয়ে যাব, হয়ত ভেবেছে আর আসবনা, কিন্তু আসতে দেখে কি হাসি! ট্যাবলেট আর খাবার কিনে দিলাম, এটা লিখার উদ্দেশ্য এক্টাই তা হলো!
তিনি আরও বলেন, নিজেকে ভালো মানুষ প্রমাণ করা তা কিন্তু নয়, উদ্দেশ্য হলো আমার মাত্র ৬৫ টাকা খরচে, আল্লাহ চাইলে এই বাচ্চা গুলো তার মাকে কাল সুস্থ দেখবে। তার মা তাদের দায়িত্ব নিবে কাল থেকে। অথচ যদি মেডিসিন না পেয়ে তাদের মায়ের কিছু একটা হয়ে যেত এই বাচ্চা গুলার কি হতো? ভেবেছেন? সমাজ কাল তাদের টোকাই বলে তাড়িয়ে দিতো! লাস্ট একটা কথাই বলতে চাই! প্লিজ একটু খেয়াল রাখবেন, কারণ এই সমাজ আপনার আমার, নিজেরা খেয়াল না রাখলে সমাজ আর সমাজের মানুষগুলো ভালো থাকবে না! আপনার ৫০ টাকা আর একটু সাহায্যই পারে কাউকে তার সুস্থতা ফিরিয়ে দিতে!

Related posts

Leave a Comment