সেতু নির্মিত হলেও যাতায়াতে বাঁশের সাঁকোই ভরসা বিশম্ভরপুরের সহস্রাধিক মানুষের

তাহিরপুর প্রতিনিধি:: খালের উপর সেতু আছে কিন্তু দু-পাশে কোনো সড়ক নেই। সড়কবিহীন সেতুটি পড়ে আছে দীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে। স্থানীয়রা তাই সেতুটি ওঠার জন্য তৈরি করেছেন বাঁশের সাঁকো। এই সাঁকো পেরিয়েই উঠতে হয় মূল সেতুতে।

সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার দক্ষিণ বাদাঘাট ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামের খালের উপর গিয়ে দেখা মিলে এই সেতুর।

জানা যায়, জেলার দক্ষিণ বাদাঘাট ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামের সড়কটি দিয়ে বড়খলা, শাহপুর, আমড়িয়া, বালিজুড়ি, জামালপুরসহ বেশ কয়েকটি গ্রামের বিভিন্ন বয়সের শিক্ষার্থীসহ প্রায় ৭শতাধিক মানুষ চলাচল করে প্রতিনিয়ত। জামালপুর গ্রাম থেকে এই সড়কটি দিয়ে ১০০মিটার পশ্চিম-দক্ষিণ দিক দিয়ে সংযুক্ত হয় তাহিরপুর টু সুনামগঞ্জ সড়কের সাথে। এই সড়কটিতে প্রায় পাঁচ বছর পূর্বে জামালপুর খালের উপর একটি ছোট সেতু নির্মাণ করা হয়। কিন্তু মূল অংশের কাজ শেষ হওয়ার পর বন্যার করণে দুই পাশের সংযোগ গাইড অংশের মাটি সরে গেছে। এই সংযোগ অংশের মাটি সরে যাওয়ার কারণে কয়েকটি গ্রামের মানুষ এই সেতু ব্যবহার করতে পারছেন না। বাঁশের সাকো তৈরি করে তার উপর জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন চরম দুর্ভোগের মধ্য দিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে।

এ ব্যাপারে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মো. জামাল হোসেন বলেন, প্রায় পাঁচ বছর পার হলেও ব্রিজটির মূল অংশের দুই পাশের সংযোগ সড়কের পাশে মাটি না থাকায় আমরা এই সেতুটি ব্যবহার করতে পারছি না। বাশেঁর সাকো এখন সংযোগ সড়ক তৈরী করে মানুষজন চলাচল করছে।

ব্যাবসায়ী নুরুল হক জানান, আমরা কয়েকটি গ্রামের মানুষ খুবই অবহেলিত। আমাদের গ্রামে নেই উন্নত মানের যোগাযোগ ব্যবস্থা। সেতুতে সংযোগ সড়ক না থাকায় আমাদের চরম দুর্ভোগের মধ্যে চলাচল করতে হচ্ছে।

কৃষক আমিন মিয়া জানান, এই সড়কের ব্রিজটির সাথে সড়কের সংযোগ না থাকায় উৎপাদিত কৃষি পন্য পরিবহনে চরম দূর্ভোগ পোহতে হচ্ছে। বাশেঁর সাকো তৈরী করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে।

এ বিষয়ে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ (এলজিইডি) সুনামগঞ্জ জেলার প্রকৌশলী মোঃ মাহবুব আলম জানান, এই বিষয়ে আমার জানা নেই। আমি খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করব।

বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সাদিউর রহিম জাদিদ জানান,আমি নতুন যোগদান করেছি। আমি বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে সমাধানের জন্য দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

Related posts

Leave a Comment